ভারতের গভর্নর জেনারেল গণ || Governor Generals of India


(1833 খ্রিস্টাব্দের চার্টার অ্যাক্ট অনুসারে নিযুক্ত)

• লর্ড উইলিয়াম বেন্টিঙ্ক ----- 1833-35 খ্রিস্টাব্দ
• স্যার চার্লস মেটকাফ ----- 1835-36 খ্রিস্টাব্দ
• লর্ড অকল্যান্ড ----- 1836-42 খ্রিষ্টাব্দ
• লর্ড এলেনবার ----- 1842-44 খ্রিস্টাব্দ
• লর্ড হার্ডিঞ্জ ----- 1844-48 খ্রিস্টাব্দ
• লড ডালহৌসি ----- 1848-56 খ্রিস্টাব্দ
• লর্ড ক্যানিং ----- 1856-58 খ্রিস্টাব্দ

লর্ড উইলিয়াম বেন্টিঙ্ক : লর্ড উইলিয়াম বেন্টিঙ্ক কে ‘দা ফাদার অফ মডার্ন ওয়েস্টার্ন এডুকেশন ইন ইন্ডিয়া' বলা হয়। তিনি 1828 খ্রিস্টাব্দে বাংলার গভর্নর জেনারেল নিযুক্ত হন। 1829 খ্রিস্টাব্দে সতীদাহ প্রথা নিবারণ করেন। 1830 খ্রিস্টাব্দে ঠোগীদের দমন করেন। 1831 খ্রিস্টাব্দে তিনি মহীশূর অধিকার করেন। ইংরেজি কে উচ্চ শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে ঘোষণা করেন। 1833 খ্রিস্টাব্দে চার্টার অ্যাক্ট বা সনদ আইন পাস হলে, তিনি ভারতের প্রথম গভর্নর জেনারেল নিযুক্ত হন। এর আগে এই পদের নাম ছিল বাংলার গভর্নর জেনারেল।

লর্ড ডালহৌসি : 1848 খ্রিস্টাব্দে লর্ড ডালহৌসি ভারতের গভর্নর জেনারেল নিযুক্ত হন। ভারতে সাম্রাজ্য বিস্তারের জন্য তিনি তিনটি নীতি গ্রহণ করেন যুদ্ধের দ্বারা রাজ্য জয়, স্বত্ববিলোপ নীতি এবং কুশাসনের অভিযোগে রাজ্য জয়। 1849 খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় ইঙ্গ-শিখ যুদ্ধের মাধ্যমে তিনি পাঞ্জাব অধিকার করেন। 1852 খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় ইঙ্গ ব্রহ্ম' যুদ্ধের মাধ্যমে তিনি সমগ্র দক্ষিণ ব্রহ্ম জয় করেন। স্বত্ববিলোপ নীতি প্রয়োগ করে তিনি সাতারা, জয়েৎপুর, সম্বলপুর, বাঘাট ও ভগৎ, উদয়পুর, করৌলি, ঝাঁসি এবং নাগপুর প্রভৃতি রাজ্য জয় করেন। 1856 খ্রিষ্টাব্দে কুশাসনের অভিযোগে তিনি অযোধ্যা রাজ্যটি গ্রাস করেন। লর্ড ডালহৌসি 1853 খ্রিস্টাব্দে পেশোয়া দ্বিতীয় বাজিরাও এর মৃত্যু হলে তার দত্তক পুত্র নানা সাহেবের বৃত্তি বন্ধ করেন ও পেশোয়া উপাধি বিলুপ্ত করেন। 1853 খ্রিস্টাব্দে তিনি বোম্বে থেকে থানে পর্যন্ত ভারতের প্রথম রেলপথ নির্মাণ করেন। তাকে ‘ভারতীয় রেলপথের জনক' বলা হয়। 1853 খ্রিস্টাব্দে কলকাতা থেকে আগ্রা পর্যন্ত প্রথম টেলিগ্রাফ সংযোগ স্থাপন করেন। 1854 খ্রিস্টাব্দে একটি আধুনিক ডাক ব্যবস্থার প্রবর্তন করেন। তিনি প্রথম পাবলিক ওয়ার্ক ডিপার্টমেন্ট স্থাপন করেন। তার সময়ে গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড এর নির্মাণকাজ শুরু হয়। করাচি, বোম্বে এবং কলকাতা বন্দরের সংস্কার করা হয়। তিনি সিমলাতে তার গ্রীষ্মকালীন রাজধানী স্থাপন করেন। রুরকিতে একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপন করেন। তার সময় 1854 খ্রিস্টাব্দে শিক্ষা সংক্রান্ত ‘উডের প্রতিবেদন' বা ‘উডস ডেসপ্যাচ' পাশ হয়। তার সময় 1856 খ্রিষ্টাব্দে ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগরের প্রচেষ্টায় বিধবা বিবাহ আইন পাশ হয়।

লর্ড ক্যানিং : লর্ড ক্যানিং হলেন ভারতের শেষ গভর্নর জেনারেল। তার সময় 1857 খ্রিস্টাব্দের মহাবিদ্রোহ সংঘটিত হয়। ভারতে কোম্পানির শাসনের অবসান ঘটে।

No comments:

Post a Comment

Note: only a member of this blog may post a comment.