ব্রিটিশ শাসনে বিভিন্ন ভূমি রাজস্ব ব্যবস্থা || Different land revenue system in British rule


রায়তওয়ারি ব্যবস্থা : 1820 খ্রিস্টাব্দে টমাস মনরো ও ক্যাপটেন রিড মাদ্রাজ ও বোম্বে প্রেসিডেন্সির রায়তদের সঙ্গে রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত গড়ে তোলেন। কৃষকেরা সরাসরি সরকারকে রাজস্ব দিত। জমির ওপর কৃষকদের মালিকানা স্বত্ব ছিল না। সাধারণত 30 বছর অন্তর রাজস্বের হার পরিবর্তন করা হত। রাজস্বের উচ্চ হার মেটাতে রায়তরা সাউকার মহাজনদের শোষণের শিকার হয়।

মহলওয়ারি ব্যবস্থা : 1822 খ্রিস্টাব্দে রাজস্ব সচিব ম্যাকেঞ্জি গাঙ্গেয় উপত্যকায় (উত্তর প্রদেশ, মধ্য প্রদেশ ও দিল্লি অঞ্চলে) মহলওয়ারি বন্দোবস্ত প্রবর্তন করেন। এই প্রথা অনুসারে কয়েকটি গ্রাম নিয়ে একটি মহল বা তালুক সৃষ্টি করা হতো এবং কোন একজন ব্যক্তি বা কয়েকজন ব্যক্তিকে যৌথভাবে ঐ মহলের ইজারা দেওয়া হতো। 30 বছরের জন্য জমির বন্দোবস্ত করা হতো। এই ব্যবস্থায় জমিদারের প্রাপ্য ছিল রাজস্বের 20% এবং সরকারের প্রাপ্য ছিল রাজস্বের 80%।

ভাইয়াচারী ব্যবস্থা : 1824 খ্রিস্টাব্দে এলফিনস্টোন ও ম্যাকেঞ্জির চেষ্টায় পাঞ্জাবে কয়েকটি মহল বা গ্রাম নিয়ে যৌথভাবে ‘গ্রাম ওয়ারী' ও ‘ভাইয়াচারী’ ব্যবস্থা চালু হয়। গ্রামের প্রত্যেক চাষির ওপর পৃথক পৃথক রাজস্ব ধার্য হয়। রাজস্ব আদায়ের দায়িত্ব গ্রামেরই এক ব্যক্তির ওপর ন্যস্ত হত।

তালুকদারি ব্যবস্থা : মহলওয়ারি ব্যবস্থা চালু হওয়ার পর অযোধ্যা এই ব্যবস্থার বাইরে ছিল। 1856 খ্রিস্টাব্দে অযোধ্যা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যভুক্ত হয়। গুবিনস এখানে তালুকদারি ব্যবস্থা চালু করেছিলেন।

No comments:

Post a Comment

Note: only a member of this blog may post a comment.